ঢাকা , শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
বিশ্বায়নের যুগে কারিগরি শিক্ষার বিকল্প নেই: প্রবাসী কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী মালয়েশিয়া থেকে নিজ দেশে ফিরেছেন ৬১ হাজারের বেশি নথিবিহীন প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য যেসব ভিসা চালু করেছে ওমান শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সার্ক মহাসচিবের সৌজন্য সাক্ষাৎ দ্বিতীয়বার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটি সভাপতি বেনজীর আহমেদ এবার হজে প্রচণ্ড গরমের শঙ্কা, সতর্ক থাকার আহ্বান মালয়েশিয়ায় বিভিন্ন অপরাধে ৬৬ বাংলাদেশিসহ ২৭০ অভিবাসী অভিযুক্ত মালয়েশিয়ায় যেতে না পারা ৩ হাজার কর্মীর অভিযোগ মন্ত্রণালয়ে বায়রা’র এজিএম-এ হট্টগোল, পাল্টাপাল্টি অভিযোগ রিক্রুটিং এজেন্সি মালিকদের বাংলাদেশ থেকে আরো দক্ষ কর্মী নেবে জাপান: প্রবাসী কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী

বাংলাদেশ থেকে অদক্ষ কর্মী নেয়া বন্ধ করেছে মালদ্বীপ

প্রবাস বার্তা ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ০৭:১৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪
  • / 146

 

অবৈধভাবে নিয়োগের কারণে বাংলাদেশ থেকে অদক্ষ কর্মী নিয়োগ বন্ধ করেছে মালদ্বীপ। বুধবার (২২) মালদ্বীপ দূতাবাসের এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

 

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, “সংশ্লিষ্ট সকলের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, মালদ্বীপের বর্তমান আইন অনুযায়ী এক দেশ হতে এখানে এক লক্ষ কর্মী কাজ করতে পারে। সে প্রেক্ষিতে মালদ্বীপ সরকার কর্তৃক বাংলাদেশিদের জন্য নতুন ওয়ার্ক ভিসা প্রদান বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে হাই কমিশন কর্তৃক বাংলাদেশের কোটা বাড়ানো এবং আবার ভিসা চালু করার বিষয়ে প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে।”

 

 

এতে আরো উল্লেখ করা হয়, “এছাড়াও মনে রাখতে হবে ফ্রী ভিসা বলতে কিছু নাই। আপনি যেই কোম্পানির ভিসা পেয়েছেন আপনাকে সেখানে কাজ করতে হবে। এই আইন ভঙ্গ করলে আপনার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এবং আপনাকে যেকোনো সময় গ্রেফতার করে দেশে ফেরত প্রেরণ করা হতে পারে। ইতিমধ্যে বাংলাদেশের বেশ কিছু অদক্ষ শ্রমিককে এ কারণে গ্রেফতার করে দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। তাই এখন যারা এদেশে কর্মরত আছেন এবং ভবিষ্যতে মালদ্বীপে আসবেন তাদের সকলকে এ বিষয়ে সতর্ক থাকার জন্য পুনরায় অনুরোধ করা হলো”

 

এর আগে মঙ্গলবার মালদ্বীপের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ফাতিমাথ রিফাথ স্থানীয় গণমাধ্যমকে বলেন, ‘মালদ্বীপের কিছু কোম্পানি জাল কাগজপত্র দিয়ে কর্মী নিয়োগ করেছে। তাই গেল এক মাস আগে বাংলাদেশ থেকে অদক্ষ কর্মী নিয়োগ বন্ধ করা হয়েছিল। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে।’

 

দ্বীপদেশটিতে অবৈধ অভিবাসী সমস্যা দীর্ঘদিনের। সমস্যা সমাধানের প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্প্রতি ‘কুরাঙ্গি’ নামে বিশেষ অভিযান শুরু করেছে। এই অভিযানে ৭০০ জনের বেশি অভিবাসীর বায়োমেট্রিক তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে।

 

২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশ থেকে অদক্ষ কর্মী নিয়োগের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মদ সলিহ। পরে নতুন প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুইজ্জুর প্রশাসন গত বছরের ডিসেম্বরে এই নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছিল।

 

গেল বছরের ডিসেম্বরে এক সংবাদ সম্মেলনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলী ইহুসান বলেছিলেন, বাংলাদেশি কর্মীদের জন্য ১ লাখ ৩৯ হাজার ২২০টি ওয়ার্ক পারমিট আগে থেকেই রয়েছে। তাদের মধ্যে ওয়ার্ক পারমিট ফি নিয়মিতভাবে দিয়ে বৈধ আছে মাত্র ৩৯ হাজার ৪ জন।

 

এছাড়া গেল ডিসেম্বর পর্যন্ত মালদ্বীপে ৯০ হাজার ৬৪২ জন বাংলাদেশি কর্মী আগে থেকেই ছিলেন। মালদ্বীপের কর্মসংস্থান আইন অনুযায়ী, একটি দেশ থেকে কর্মী নিয়োগের কোটা ১ লাখের কম।

শেয়ার করুন

বাংলাদেশ থেকে অদক্ষ কর্মী নেয়া বন্ধ করেছে মালদ্বীপ

আপডেটের সময় : ০৭:১৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪

 

অবৈধভাবে নিয়োগের কারণে বাংলাদেশ থেকে অদক্ষ কর্মী নিয়োগ বন্ধ করেছে মালদ্বীপ। বুধবার (২২) মালদ্বীপ দূতাবাসের এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

 

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, “সংশ্লিষ্ট সকলের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, মালদ্বীপের বর্তমান আইন অনুযায়ী এক দেশ হতে এখানে এক লক্ষ কর্মী কাজ করতে পারে। সে প্রেক্ষিতে মালদ্বীপ সরকার কর্তৃক বাংলাদেশিদের জন্য নতুন ওয়ার্ক ভিসা প্রদান বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে হাই কমিশন কর্তৃক বাংলাদেশের কোটা বাড়ানো এবং আবার ভিসা চালু করার বিষয়ে প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে।”

 

 

এতে আরো উল্লেখ করা হয়, “এছাড়াও মনে রাখতে হবে ফ্রী ভিসা বলতে কিছু নাই। আপনি যেই কোম্পানির ভিসা পেয়েছেন আপনাকে সেখানে কাজ করতে হবে। এই আইন ভঙ্গ করলে আপনার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এবং আপনাকে যেকোনো সময় গ্রেফতার করে দেশে ফেরত প্রেরণ করা হতে পারে। ইতিমধ্যে বাংলাদেশের বেশ কিছু অদক্ষ শ্রমিককে এ কারণে গ্রেফতার করে দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। তাই এখন যারা এদেশে কর্মরত আছেন এবং ভবিষ্যতে মালদ্বীপে আসবেন তাদের সকলকে এ বিষয়ে সতর্ক থাকার জন্য পুনরায় অনুরোধ করা হলো”

 

এর আগে মঙ্গলবার মালদ্বীপের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ফাতিমাথ রিফাথ স্থানীয় গণমাধ্যমকে বলেন, ‘মালদ্বীপের কিছু কোম্পানি জাল কাগজপত্র দিয়ে কর্মী নিয়োগ করেছে। তাই গেল এক মাস আগে বাংলাদেশ থেকে অদক্ষ কর্মী নিয়োগ বন্ধ করা হয়েছিল। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে।’

 

দ্বীপদেশটিতে অবৈধ অভিবাসী সমস্যা দীর্ঘদিনের। সমস্যা সমাধানের প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্প্রতি ‘কুরাঙ্গি’ নামে বিশেষ অভিযান শুরু করেছে। এই অভিযানে ৭০০ জনের বেশি অভিবাসীর বায়োমেট্রিক তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে।

 

২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশ থেকে অদক্ষ কর্মী নিয়োগের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মদ সলিহ। পরে নতুন প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুইজ্জুর প্রশাসন গত বছরের ডিসেম্বরে এই নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছিল।

 

গেল বছরের ডিসেম্বরে এক সংবাদ সম্মেলনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলী ইহুসান বলেছিলেন, বাংলাদেশি কর্মীদের জন্য ১ লাখ ৩৯ হাজার ২২০টি ওয়ার্ক পারমিট আগে থেকেই রয়েছে। তাদের মধ্যে ওয়ার্ক পারমিট ফি নিয়মিতভাবে দিয়ে বৈধ আছে মাত্র ৩৯ হাজার ৪ জন।

 

এছাড়া গেল ডিসেম্বর পর্যন্ত মালদ্বীপে ৯০ হাজার ৬৪২ জন বাংলাদেশি কর্মী আগে থেকেই ছিলেন। মালদ্বীপের কর্মসংস্থান আইন অনুযায়ী, একটি দেশ থেকে কর্মী নিয়োগের কোটা ১ লাখের কম।