ঢাকা , রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
প্রবাসীদের দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর মালয়েশিয়ায় চালু হচ্ছে ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম প্রবাসীদের ঈদ উদযাপন বাস্তবতা খুঁজে পাওয়া দুষ্কর মালয়েশিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনা, চিকিৎসাধীন আরেক বাংলাদেশির মৃত্যু মালয়েশিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ বাংলাদেশির মৃত্যু নিউইয়র্কে জাতিসংঘ মহাসচিবের সঙ্গে সার্কের মহাসচিবের সৌজন্য সাক্ষাৎ মালয়েশিয়ায় ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় মালয়েশিয়ায় বুধবার পবিত্র ঈদুল ফিতর অনুমতি ছাড়া আতশবাজি বিক্রি:মালয়েশিয়ায় ২ বাংলাদেশিসহ গ্রেপ্তার ৩ বাংলাদেশি কর্মীদের প্রশংসায় মালয়েশিয়ার সাবেক মন্ত্রী এম সারাভানান কুয়ালালামপুর-ঢাকা রুটে বিমান ভাড়া নিয়ে নৈরাজ্য

মালয়েশিয়ায় বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন

আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া
  • আপডেটের সময় : ০৬:৫৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ মার্চ ২০২৪
  • / 32

 

শ্রদ্ধা, ভালোবাসা এবং রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৪তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপিত হয়েছে।

 

রোববার (১৭ মার্চ)  মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন করা হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মো: শামীম আহসানের নেতৃত্বে প্রথমে দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অংশগ্রহণে এবং পরে আমন্ত্রিত অতিথি ও প্রবাসী নেতাদের অংশগ্রহণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

 

এরপর দূতাবাস প্রাঙ্গণে সবার অংশগ্রহণে সমবেত কণ্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন হাইকমিশনার মো: শামীম আহসান। পতাকা উত্তোলন শেষে জাতির পিতা, তার পরিবারের শাহাদাতবরণকারী সদস্য ও স্বাধীনতা যুদ্ধে জীবন উৎসর্গকারী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত এবং বাংলাদেশের সমৃদ্ধি কামনা করা হয়।

 

এরপর হাইকমিশনের মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শোনানো হয়। বাণী পাঠ শেষ হলে হাইকমিশনার মো: শামীম আহসান স্বাগত ও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। হাইকমিশনার মোঃ শামীম আহসান তার বক্তৃতার শুরুতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্টের সকল শহীদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

 

হাইকমিশনার তার বক্তৃতায় শিশুদের প্রতি বঙ্গবন্ধুর অকৃত্রিম ভালোবাসার কথা তুলে ধরেন। শৈশব থেকেই শিশুদের প্রতি বঙ্গবন্ধুর দৃশ্যমান অকৃত্রিম ভালোবাসা পরিণত বয়সে তা মহান নেতার রাজনৈতিক দর্শন মানুষের প্রতি ভালোবাসার মধ্য দিয়ে কীভাবে প্রতিফলিত হয়, তার ওপর হাইকমিশনার মো. শামীম আহসান আলোকপাত করেন।

 

তিনি এ প্রসঙ্গে শিশুদের কল্যাণে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক গৃহীত কর্মকান্ডের কথা উল্লেখ করেন। হাইকমিশনার বলেন, বঙ্গবন্ধুর ‘সোনার বাংলা ‘ নির্মাণের স্বপ্নকে অনুসরণ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি সমৃদ্ধ ও জ্ঞানভিত্তিক স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বদ্ধপরিকর। তাঁর কার্যকর পদক্ষেপের ফলে বাংলাদেশ একটি গতিশীল অর্থনীতি ও সম্ভাবনার দেশে পরিণত হয়েছে। দারিদ্র বিমোচন, নারীর ক্ষমতায়ন, পরিবেশ সুরক্ষা, স্বাস্থ্য , শিক্ষা বিভিন্ন সামাজিক সূচকে বাংলাদেশের অগ্রগতি ঈর্ষণীয়। বাংলাদেশ আজ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে পরিগণিত হয়েছে।

 

 

আলোচনা সভার পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৪তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে হাইকমিশন কর্তৃক আয়োজিত চিত্রাঙ্কন ও রচনা প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। হাইকমিশনার এবং তার সহধর্মিণী, পেন্ডোরা চৌধুরী শিশুদের সঙ্গে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনের কেক কাটেন।

 

এরপর জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও কর্মের ওপর নির্মিত বিশেষ তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। জন্মদিন উপলক্ষে হাইকমিশনের মিলনায়তনটি উৎসবের সাজে সাজানো হয়। বেলুন, রকমারি রঙিন পোস্টার, প্রতিকৃতি প্রভৃতি দিয়ে আকর্ষণীয়ভাবে সাজানো হলটিতে প্রবাসে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন পালন একটি আনন্দঘন আবহ তৈরি করে। সবশেষে, বঙ্গবন্ধুর শুভ জন্মদিন এবং জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন উপলক্ষে বেলুন উড়ানো হয়।

 

অনুষ্ঠানে মালয়েশিয়ায় বসবাসরত বাংলাদেশ কমিউনিটি এবং বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের বিশিষ্ট নেতৃবৃন্দ এবং হাইকমিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ ও তাদের শিশুসন্তানেরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান শেষে হাইকমিশনার অতিথিদের নিয়ে ইফতারে অংশগ্রহণ করেন।

শেয়ার করুন

মালয়েশিয়ায় বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন

আপডেটের সময় : ০৬:৫৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ মার্চ ২০২৪

 

শ্রদ্ধা, ভালোবাসা এবং রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৪তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপিত হয়েছে।

 

রোববার (১৭ মার্চ)  মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন করা হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মো: শামীম আহসানের নেতৃত্বে প্রথমে দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অংশগ্রহণে এবং পরে আমন্ত্রিত অতিথি ও প্রবাসী নেতাদের অংশগ্রহণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

 

এরপর দূতাবাস প্রাঙ্গণে সবার অংশগ্রহণে সমবেত কণ্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন হাইকমিশনার মো: শামীম আহসান। পতাকা উত্তোলন শেষে জাতির পিতা, তার পরিবারের শাহাদাতবরণকারী সদস্য ও স্বাধীনতা যুদ্ধে জীবন উৎসর্গকারী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত এবং বাংলাদেশের সমৃদ্ধি কামনা করা হয়।

 

এরপর হাইকমিশনের মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শোনানো হয়। বাণী পাঠ শেষ হলে হাইকমিশনার মো: শামীম আহসান স্বাগত ও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। হাইকমিশনার মোঃ শামীম আহসান তার বক্তৃতার শুরুতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্টের সকল শহীদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

 

হাইকমিশনার তার বক্তৃতায় শিশুদের প্রতি বঙ্গবন্ধুর অকৃত্রিম ভালোবাসার কথা তুলে ধরেন। শৈশব থেকেই শিশুদের প্রতি বঙ্গবন্ধুর দৃশ্যমান অকৃত্রিম ভালোবাসা পরিণত বয়সে তা মহান নেতার রাজনৈতিক দর্শন মানুষের প্রতি ভালোবাসার মধ্য দিয়ে কীভাবে প্রতিফলিত হয়, তার ওপর হাইকমিশনার মো. শামীম আহসান আলোকপাত করেন।

 

তিনি এ প্রসঙ্গে শিশুদের কল্যাণে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক গৃহীত কর্মকান্ডের কথা উল্লেখ করেন। হাইকমিশনার বলেন, বঙ্গবন্ধুর ‘সোনার বাংলা ‘ নির্মাণের স্বপ্নকে অনুসরণ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি সমৃদ্ধ ও জ্ঞানভিত্তিক স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বদ্ধপরিকর। তাঁর কার্যকর পদক্ষেপের ফলে বাংলাদেশ একটি গতিশীল অর্থনীতি ও সম্ভাবনার দেশে পরিণত হয়েছে। দারিদ্র বিমোচন, নারীর ক্ষমতায়ন, পরিবেশ সুরক্ষা, স্বাস্থ্য , শিক্ষা বিভিন্ন সামাজিক সূচকে বাংলাদেশের অগ্রগতি ঈর্ষণীয়। বাংলাদেশ আজ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে পরিগণিত হয়েছে।

 

 

আলোচনা সভার পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৪তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে হাইকমিশন কর্তৃক আয়োজিত চিত্রাঙ্কন ও রচনা প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। হাইকমিশনার এবং তার সহধর্মিণী, পেন্ডোরা চৌধুরী শিশুদের সঙ্গে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনের কেক কাটেন।

 

এরপর জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও কর্মের ওপর নির্মিত বিশেষ তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। জন্মদিন উপলক্ষে হাইকমিশনের মিলনায়তনটি উৎসবের সাজে সাজানো হয়। বেলুন, রকমারি রঙিন পোস্টার, প্রতিকৃতি প্রভৃতি দিয়ে আকর্ষণীয়ভাবে সাজানো হলটিতে প্রবাসে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন পালন একটি আনন্দঘন আবহ তৈরি করে। সবশেষে, বঙ্গবন্ধুর শুভ জন্মদিন এবং জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন উপলক্ষে বেলুন উড়ানো হয়।

 

অনুষ্ঠানে মালয়েশিয়ায় বসবাসরত বাংলাদেশ কমিউনিটি এবং বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের বিশিষ্ট নেতৃবৃন্দ এবং হাইকমিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ ও তাদের শিশুসন্তানেরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান শেষে হাইকমিশনার অতিথিদের নিয়ে ইফতারে অংশগ্রহণ করেন।