ঢাকা , রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
প্রবাসীদের দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর মালয়েশিয়ায় চালু হচ্ছে ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম প্রবাসীদের ঈদ উদযাপন বাস্তবতা খুঁজে পাওয়া দুষ্কর মালয়েশিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনা, চিকিৎসাধীন আরেক বাংলাদেশির মৃত্যু মালয়েশিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ বাংলাদেশির মৃত্যু নিউইয়র্কে জাতিসংঘ মহাসচিবের সঙ্গে সার্কের মহাসচিবের সৌজন্য সাক্ষাৎ মালয়েশিয়ায় ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় মালয়েশিয়ায় বুধবার পবিত্র ঈদুল ফিতর অনুমতি ছাড়া আতশবাজি বিক্রি:মালয়েশিয়ায় ২ বাংলাদেশিসহ গ্রেপ্তার ৩ বাংলাদেশি কর্মীদের প্রশংসায় মালয়েশিয়ার সাবেক মন্ত্রী এম সারাভানান কুয়ালালামপুর-ঢাকা রুটে বিমান ভাড়া নিয়ে নৈরাজ্য

পুরো পরিবারের সাথে ইতালি প্রবাসীর ১৫ বছরের স্বপ্নেরও চিরবিদায়

রাকিব হাওলাদার: প্রবাস বার্তা
  • আপডেটের সময় : ১১:৩৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪
  • / 79

 

ইতালিতে স্থায়ীভাবে বসবাসের উদ্দেশ্যে পরিবারকে নিতে দেশে আসেন সৈয়দ মোবারক হোসেন কাউসার। পরিবারের সবার ভিসাও হয়ে গেছে। আগামী ২২ মার্চ ইতালি যাওয়ার কথা সবার। কিন্তু সব আশা শেষ হয়ে গেছে এক রাতে।

 

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর বেইলি রোডের একটি ভবনে আগুনে পুড়ে মারা গেছেন মোবারক, তার স্ত্রী ও তিন সন্তান। নিহতরা হলেন মোবারকের স্ত্রী স্বপ্না আক্তার (৪২), বড় মেয়ে সৈয়দা ফাতেমা তুজ জহুরা (১৯), ছোট মেয়ে সৈয়দা আমেনা আক্তার (১৩) এবং একমাত্র ছেলে সৈয়দ আবদুল্লাহ (৮)।

 

নিহত মোবারক হোসেনের গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার শাহবাজপুর গ্রামে। মোবারক ১৫ বছর যাবৎ ইতালিতে ছিলেন। সেখানে ব্যবসা করতেন তিনি। এর আগে থাকতেন সিঙ্গাপুরে। গেলো ৩০ জানুয়ারি স্ত্রী সন্তানকে ইতালি নিতে দেশে আসেন। যাওয়ার সব প্রস্তুতি শেষ। সবশেষ মা ও স্বজনদের সাথে দেখা করতে গ্রামের বাড়ী যাওয়ার কথা ছিল আজ শুক্রবার।

 

নিহত মোবারক হোসেনের শ্বশুর সংবাদ মাধ্যমকে জানান, মোবারক ঢাকার মগবাজার এলাকায় থাকতেন। বৃহস্পতিবার রাতে পরিবারের ৫ সদস্য নিয়ে বেইলি রোডের কাচ্চি ভাই রেস্তোরাঁয় রাতের খাবার খেতে গিয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় সবাই পুড়ে মারা যায়। শুক্রবার নিজ গ্রামে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে পাশাপাশি পাঁচটি কবরে দাফন সম্পন্ন করা হয়।

 

রাজধানীর বেইলি রোডে বহুতল একটি ভবনে অগ্নিকাণ্ডে অন্তত ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। গুরুতর আহত হয়েছেন অন্তত ২২ জন। এ ঘটনায় নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১০টার দিকে ভবনটিতে আগুন লাগে। আগুন নেভানোর পর হতাহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নেওয়া হয়।

শেয়ার করুন

পুরো পরিবারের সাথে ইতালি প্রবাসীর ১৫ বছরের স্বপ্নেরও চিরবিদায়

আপডেটের সময় : ১১:৩৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪

 

ইতালিতে স্থায়ীভাবে বসবাসের উদ্দেশ্যে পরিবারকে নিতে দেশে আসেন সৈয়দ মোবারক হোসেন কাউসার। পরিবারের সবার ভিসাও হয়ে গেছে। আগামী ২২ মার্চ ইতালি যাওয়ার কথা সবার। কিন্তু সব আশা শেষ হয়ে গেছে এক রাতে।

 

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর বেইলি রোডের একটি ভবনে আগুনে পুড়ে মারা গেছেন মোবারক, তার স্ত্রী ও তিন সন্তান। নিহতরা হলেন মোবারকের স্ত্রী স্বপ্না আক্তার (৪২), বড় মেয়ে সৈয়দা ফাতেমা তুজ জহুরা (১৯), ছোট মেয়ে সৈয়দা আমেনা আক্তার (১৩) এবং একমাত্র ছেলে সৈয়দ আবদুল্লাহ (৮)।

 

নিহত মোবারক হোসেনের গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার শাহবাজপুর গ্রামে। মোবারক ১৫ বছর যাবৎ ইতালিতে ছিলেন। সেখানে ব্যবসা করতেন তিনি। এর আগে থাকতেন সিঙ্গাপুরে। গেলো ৩০ জানুয়ারি স্ত্রী সন্তানকে ইতালি নিতে দেশে আসেন। যাওয়ার সব প্রস্তুতি শেষ। সবশেষ মা ও স্বজনদের সাথে দেখা করতে গ্রামের বাড়ী যাওয়ার কথা ছিল আজ শুক্রবার।

 

নিহত মোবারক হোসেনের শ্বশুর সংবাদ মাধ্যমকে জানান, মোবারক ঢাকার মগবাজার এলাকায় থাকতেন। বৃহস্পতিবার রাতে পরিবারের ৫ সদস্য নিয়ে বেইলি রোডের কাচ্চি ভাই রেস্তোরাঁয় রাতের খাবার খেতে গিয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় সবাই পুড়ে মারা যায়। শুক্রবার নিজ গ্রামে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে পাশাপাশি পাঁচটি কবরে দাফন সম্পন্ন করা হয়।

 

রাজধানীর বেইলি রোডে বহুতল একটি ভবনে অগ্নিকাণ্ডে অন্তত ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। গুরুতর আহত হয়েছেন অন্তত ২২ জন। এ ঘটনায় নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১০টার দিকে ভবনটিতে আগুন লাগে। আগুন নেভানোর পর হতাহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নেওয়া হয়।