ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ৬ আশ্বিন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :

পর্তুগালে বাংলাদেশ দূতাবাসের চ্যান্সারি ভবন উদ্বোধন

Print Friendly, PDF & Email

 

পর্তুগালের লিসবনে বাংলাদেশ দূতাবাসের নিজেস্ব ৩ তলা চ্যান্সরি ভবন উদ্বোধন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

শুক্রবার উদ্বোধনী ফলক উন্মোচন ও ফিতা কাটে পররাষ্ট্রমন্ত্রী চ্যান্সারি ভবনের উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন পর্তুগালের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাসচিব রাষ্ট্রদূত আলভারো মেন্ডোনসা ই মৌরা ও রাষ্ট্রদূত তারিক আহসান, রিয়ার অ্যাডমিরাল (অব.) মো. খুরশেদ আলম সহ দূতাবাসের অন্যান্য কর্মকর্তারা।

উদ্বোধনের পর মন্ত্রী বলেন, এই ভবনটি শুধুমাত্র একটি নির্মাণ বা স্থাপনা নয়, এটি পর্তুগালে আমাদের বন্ধুদের কাছে আমাদের একটি বার্তা যা আমাদের অভিন্ন ইতিহাসকে বহন করে এবং জানান দেয় আমরা বর্তমান সময়ের মানুষে মানুষের যোগাযোগ সুবিধাকে লালন করি। ভুবনটি জাতীয় উন্নয়নের মান অনুযায়ী বিশ্বব্যাপী কূটনৈতিক সম্পর্ক এগিয়ে নিয়ে যাবে বলেও আশা করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

এছাড়া স্বাগত বক্তব্যে পর্তুগালে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত তারিক আহসান বলেন, স্থায়ী চ্যান্সারী ভবনটি প্রকৃতপক্ষে বহুদিনের চাহিদার ফসল, কারন দূতাবাসের কাজ নানাভাবে বহুগূণ বেড়ে গেছে। কনস্যুলার কার্যক্রমও বেড়ে গেছে অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও পাবলিক কূটনীতির কারণ।

এদিকে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি পর্তুগালের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাসচিব রাষ্ট্রদূত আলভারো মেন্ডোনোয়া ই মৌরা বাংলাদেশ সরকার এবং পর্তুগালে বসবাসরত সকল প্রবাসীদের অভিনন্দন জানান।

২ হাজার বর্গমিটার জমির ওপর ভিত্তি করে গড়ে উথেছে চ্যান্সেরি তিনতলা ভবনটি। ভবনটির মধ্যে রয়েছে অভ্যর্থনা এলাকা, অডিটোরিয়াম, বঙ্গবন্ধু কর্নার, কনফারেন্স রুম, ডাইনিং রুম, প্রশস্ত প্রদর্শনী কক্ষ, আলাদা প্রবেশদ্বারসহ কনস্যুলার সার্ভিস এলাকা, প্রশস্ত ওয়েটিং রুম এবং ফোয়ারা, অফিস কক্ষ ,ও কর্মকর্তাদের জন্য উপযুক্ত বড় খোলা জায়গা। বড় পাবলিক ইভেন্ট আয়োজন করার সুযোগ। এটি ইউরোপের বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় চ্যান্সারি ভবনগুলোর একটি।

 

Tag :
জনপ্রিয়

মালয়েশিয়ায় মৃত্যুদন্ড থেকে রেহাই পেলেন বাংলাদেশি

পর্তুগালে বাংলাদেশ দূতাবাসের চ্যান্সারি ভবন উদ্বোধন

আপডেট: ০৩:৪৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩ জুলাই ২০২২
Print Friendly, PDF & Email

 

পর্তুগালের লিসবনে বাংলাদেশ দূতাবাসের নিজেস্ব ৩ তলা চ্যান্সরি ভবন উদ্বোধন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

শুক্রবার উদ্বোধনী ফলক উন্মোচন ও ফিতা কাটে পররাষ্ট্রমন্ত্রী চ্যান্সারি ভবনের উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন পর্তুগালের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাসচিব রাষ্ট্রদূত আলভারো মেন্ডোনসা ই মৌরা ও রাষ্ট্রদূত তারিক আহসান, রিয়ার অ্যাডমিরাল (অব.) মো. খুরশেদ আলম সহ দূতাবাসের অন্যান্য কর্মকর্তারা।

উদ্বোধনের পর মন্ত্রী বলেন, এই ভবনটি শুধুমাত্র একটি নির্মাণ বা স্থাপনা নয়, এটি পর্তুগালে আমাদের বন্ধুদের কাছে আমাদের একটি বার্তা যা আমাদের অভিন্ন ইতিহাসকে বহন করে এবং জানান দেয় আমরা বর্তমান সময়ের মানুষে মানুষের যোগাযোগ সুবিধাকে লালন করি। ভুবনটি জাতীয় উন্নয়নের মান অনুযায়ী বিশ্বব্যাপী কূটনৈতিক সম্পর্ক এগিয়ে নিয়ে যাবে বলেও আশা করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

এছাড়া স্বাগত বক্তব্যে পর্তুগালে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত তারিক আহসান বলেন, স্থায়ী চ্যান্সারী ভবনটি প্রকৃতপক্ষে বহুদিনের চাহিদার ফসল, কারন দূতাবাসের কাজ নানাভাবে বহুগূণ বেড়ে গেছে। কনস্যুলার কার্যক্রমও বেড়ে গেছে অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও পাবলিক কূটনীতির কারণ।

এদিকে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি পর্তুগালের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাসচিব রাষ্ট্রদূত আলভারো মেন্ডোনোয়া ই মৌরা বাংলাদেশ সরকার এবং পর্তুগালে বসবাসরত সকল প্রবাসীদের অভিনন্দন জানান।

২ হাজার বর্গমিটার জমির ওপর ভিত্তি করে গড়ে উথেছে চ্যান্সেরি তিনতলা ভবনটি। ভবনটির মধ্যে রয়েছে অভ্যর্থনা এলাকা, অডিটোরিয়াম, বঙ্গবন্ধু কর্নার, কনফারেন্স রুম, ডাইনিং রুম, প্রশস্ত প্রদর্শনী কক্ষ, আলাদা প্রবেশদ্বারসহ কনস্যুলার সার্ভিস এলাকা, প্রশস্ত ওয়েটিং রুম এবং ফোয়ারা, অফিস কক্ষ ,ও কর্মকর্তাদের জন্য উপযুক্ত বড় খোলা জায়গা। বড় পাবলিক ইভেন্ট আয়োজন করার সুযোগ। এটি ইউরোপের বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় চ্যান্সারি ভবনগুলোর একটি।