1. admin@probashbarta.com : pbadmin :
  2. info@probashbarta.com : PBC Desk02 : PBC Desk02
  3. mhgbangla@gmail.com : Meraj Hossain Gazi : Meraj Hossain Gazi
লন্ডনে মারা গেলেন 'আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারি' গানের রচয়িতা - প্রবাস বার্তা
শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০৭:৫১ অপরাহ্ন

লন্ডনে মারা গেলেন ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারি’ গানের রচয়িতা

প্রবাস বার্তা, ডেস্ক
  • আপডেট: বৃহস্পতিবার, ১৯ মে, ২০২২
‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পরি’ গানের রচয়িতা আব্দুল গাফফার চৌধুরী।
Print Friendly, PDF & Email

কালজয়ী  ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পরি’ গানের রচয়িতা প্রবীণ ভাষাসৈনিক এবং বিশিষ্ট কলামিস্ট আব্দুল গাফফার চৌধুরী মারা গেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইনা ইলাইহি রাজিউন।

বৃহস্পতিবার (১৯ মে ) সকালে লন্ডনের একটি হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৮ বছর।
তার পরিবার ও লন্ডনে বাংলাদেশ হাই কমিশন একথা জানিয়েছে।

পারিবারিক সূত্র গণমাধ্যমকে জানায়, আগামীকাল বাদ জুমা লন্ডনের ব্রিক লেন মসজিদে মরহুমের প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। পরে, ব্রিটিশ-বাংলাদেশি সম্প্রদায় এবং অন্যান্য ভক্তদের শেষ বারের মত দেখার জন্য কিংবদন্তি এই সাংবাদিকের মরদেহ পূর্ব লন্ডনের ঐতিহাসিক শহীদ আলতাব আলী পার্কের শহীদ মিনারে রাখা হবে।

শিগগিরই তার দাফনের স্থান নির্ধারণ করা হবে বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে। আব্দুল গাফফার চৌধুরী তার কালজয়ী গান ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পরি’ রচনার জন্য ব্যাপকভাবে সুপরিচিত।

বিবিসি বাংলা সার্ভিসের শ্রোতাদের জরিপে গানটি তৃতীয় সেরা বাংলা গান হিসেবে বিবেচিত হয়। বৃটিশ শাসনামলে ১৯৩৪ সালের ১২ ডিসেম্বর তৎকালীন অবিভক্ত ভারতে বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জের উলানিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

ব্রিটিশ ভারতের জমিদার এবং বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনকারী হাজী ওয়াহেদ রেজা চৌধুরীর ছেলে গাফফার ১৯৫৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন। তিনি প্রায়ই তার জন্মভূমিতে আসতেন এবং বাংলাদেশের সংবাদপত্রগুলোতে নিয়মিত কলাম লিখতেন। আর এভাবেই তিনি তার প্রিয় বাংলাদেশের সাথে নিবিড় সম্পর্ক রেখে গেছেন।

গাফফার দেশের চলমান পরিস্থিতি ও ঘটনার ওপর নিবিড় পর্যবেক্ষণ বজায় রাখতেন। ব্রিটেনে যাওয়ার আগে গাফফার ঢাকার বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় কাজ করেছেন। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি জয় বাংলা, যুগান্তর ও আনন্দবাজার পত্রিকায় কাজ করেন।

যুক্তরাজ্যে গাফফার নতুন দিন নামে একটি সংবাদপত্র চালু করেন। পেশাদার সাংবাদিক হিসেবে তিনি সাংবাদিকতা জীবনে ‘ডানপিটে শওকত’, ‘চন্দ্রদ্বীপের উপাখ্যান’, ‘নাম না জানা ভোরে’, ‘নীল যমুনা’, ‘শেষ রজনীর চাঁদ’ ও ‘পলাশী থেকে ধানমন্ডি’ এর মতো ৩৫টি গ্রন্থ রচনা করেছেন।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পূর্বেও বাংলা সাহিত্যের ভূবনে তার অবদান উল্লেখযোগ্য। তিনি ১৯৬৭ সালে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেন। ২০০৯ সালে তিনি স্বাধীনতা পদকে ভূষিত হন। এছাড়াও তিনি বাংলা একাডেমি পদক, স্বাধীনতা পদক, একুশে পদক, ইউনেস্কো সাহিত্য পুরস্কার, বঙ্গবন্ধু পদক, সংহতি আজীবন সম্মাননা পুরস্কার পান।

সুত্রঃ বাসস

খবরটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2022 Probashbarta.com
Developed by Online Solution xYz