1. monir212@gmail.com : admin :
  2. support@wordpress.org : Support :
  3. merajhgazi@gmail.com : News Desk : Meraj Hossen Gazi
  4. desk@probashbarta.com : News Desk : News Desk
শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:২৬ পূর্বাহ্ন

মালয়েশিয়ায় বিদেশিদের প্রবেশে ই-লকার সিস্টেম চালু করবে সরকার

আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া
  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ১৪ জানুয়ারী, ২০২২
Print Friendly, PDF & Email

 

মালয়েশিয়ায় বিদেশিদের প্রবেশে ই-লকার সিস্টেম চালু করবে সরকার। আর এ ই-লকার দক্ষতার সাথে পরিচালনা করবে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। ২০২২ সালের ফোকাসগুলির মধ্যে এটি একটি উদ্যোগ। যার মাধ্যমে মন্ত্রণালয় মালয়েশিয়ায় বিদেশিদের প্রবেশের ব্যবস্থাপনায় বিগ ডেটা সর্বোত্তমভাবে ব্যবহার করা হবে বলে জানালেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দাতুক সেরী হামজাহ জয়নুদিন। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় বলছে, দেশে বিদেশিদের সফলভাবে পরিচালনা করার জন্য এটি করা হচ্ছে। এ ছাড়া “ই-লকার ব্যবস্থাটি শুধু উপদ্বীপেই নয়, সাবাহ এবং সারাওয়াকেও ব্যবহার করা হবে।

১৩ জানুয়ারি এক বক্তৃতায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন,”যখন বিদেশিরা মালয়েশিয়ায় পৌঁছাবে,তাদের অবস্থান জানতে ই-লকার সিস্টেম নিশ্চিত করবে যে (তথ্য সম্পর্কিত) ভিসা, সমস্ত নথি, এবং মালয়েশিয়ায় তারা যা কিছু করে তা সহজেই পাওয়া যায়। ইতিমধ্যে ভারত এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে ই-লকার সিস্টেম, চালু করা হয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এটি সরকার, মূল দেশ, নিয়োগকর্তা এবং বিদেশী কর্মীদের উপকৃত করবে কারণ এতে বিদেশী কর্মীদের নথিপত্র যেমন পাসপোর্ট, কর্মসংস্থান চুক্তি, ভিসা এবং কাজের পাস অন্তর্ভুক্ত রয়েছে, যা ডিজিটালভাবে অ্যাক্সেস করা যেতে পারে। এ ছাড়া সংশ্লিষ্ট এজেন্সিগুলোর ক্ষমতায়নে মন্ত্রণালয়ের বিভাগগুলো পুনর্গঠনের পরিকল্পনাও রয়েছে। নতুন বছর পুনর্গঠনের সাথে জড়িত সংস্থাগুলির মধ্যে রয়েছে পুলিশ, ইমিগ্রেশন বিভাগ, ন্যাশনাল অ্যান্টি-ড্রাগ এজেন্সি (নাডা) এবং ইস্টার্ন সাবাহ সিকিউরিটি কমান্ড (এসকম)। মন্ত্রণালয় এই বছর নির্দিষ্ট আইনসভা এবং স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং পদ্ধতি (এসওপি) সহ বেশ কয়েকটি নীতি পর্যালোচনা করবে এবং প্রাসঙ্গিক সমস্যাগুলি দক্ষতার সাথে, পদ্ধতিগতভাবে সমাধান করা হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় জননিরাপত্তাকে আরও শক্তিশালী করতে চায়। মন্ত্রণালয় সমস্ত বিদ্যমান আইন যেমন নিরাপত্তা অপরাধ (বিশেষ ব্যবস্থা) আইন ২০১২ (সোসমা), ছাপাখানা এবং প্রকাশনা আইন ১৯৮৪, জেল আইন ১৯৯৫, ব্যক্তিগত সংস্থা আইন ১৯৭১ এবং আল-কুরআন টেক্সট পাবলিশিং অ্যাক্ট ১৯৮৬”এর উপর ভিত্তি করে, আমাদের পর্যালোচনা করতে হবে এবং নিশ্চিত করতে হবে যে এই আইনগুলি নির্দিষ্ট সংশোধনের প্রয়োজন হলে সেই অনুযায়ী সংশোধন করা হবে বলেও জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হামজাহ জযনুদিন ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও খবর
© 2018 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের লেখ, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যাবহার বেআইনি
Theme Customized BY LatestNews