1. monir212@gmail.com : admin :
  2. support@wordpress.org : Support :
  3. merajhgazi@gmail.com : News Desk : Meraj Hossen Gazi
  4. desk@probashbarta.com : News Desk : News Desk
শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:০৫ পূর্বাহ্ন

বিশ্ববিদ্যালয়ের টিউশন ফি পাঠিয়ে বিপাকে নেদারল্যান্ডসগামী শিক্ষার্থীরা

আয়াজ রাহমান, নেদারল্যান্ডস প্রবাসী শিক্ষার্থী :
  • প্রকাশিত : রবিবার, ৯ জানুয়ারী, ২০২২
Print Friendly, PDF & Email

 

বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা নেদারল্যান্ডসে আসার পর পড়াশোনা করবে না, টিউশন ফি আদায়ের পর এমন যুক্তি দিয়ে ভর্তি বাতিল করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। নেদারল্যান্ডসের ফনটিস ইউনিভার্সিটি অব এপ্লায়েড সায়েন্স হঠাৎ এমন সিদ্ধান্ত জানিয়েছে।

যদিও অনেক বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা ফেব্রুয়ারি সেশনেও অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ভর্তির পর ভিসার ইতিবাচক ফলাফল পাচ্ছে। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয় তাদেরকে ভর্তির ইতিবাচক ফলাফল জানানোর পর টিউশন ফিসহ এক বছরের থাকার খরচ পাঠাতে বলে। টিউশন ফি পাঠানোর পর বিশ্ববিদ্যালয়ের নেদারল্যান্ডসে অবস্থানরত ইমিগ্রেশন অফিসে (আইএনডি) তাদের ভিসার আবেদন পত্রের জন্য আবেদন করার কথা।

ছাত্রদের অনেকেরই অভিযোগ, ভিসার আবেদন পত্র পাওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হঠাৎ বাংলাদেশি ছাত্রদের ভর্তি বাতিল করছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কারণ হিসেবে ছাত্ররা সেখানে গিয়ে পড়বে না বলে জানিয়েছে।

নেদারল্যান্ডসের স্টুডেন্ট ভিসার নিয়ম অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের স্পন্সর হয়ে ভিসার জন্য আবেদন করে। প্রথমত বিশ্ববিদ্যালয় আবেদনকারী শিক্ষার্থীদের একাডেমিক ডকুমেন্ট সংগ্রহ করার পর সাক্ষাৎকার নেয়। সাক্ষাৎকার ইতিবাচক মনে হলে তারা ভর্তি নিয়ে টিউশন ফি সহ এক বছরের বসবাস করার মতো খরচ বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাংক একাউন্টে পাঠাতে বলে।

এই নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ আদায়ের পর বিশ্ববিদ্যালয় নেদারল্যান্ডসের ইমিগ্রেশন অফিস থেকে ভিসা এপ্রুভাল লেটারের জন্যে আবেদন করে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের মতে, যেহেতু বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা নেদারল্যান্ডসে গিয়ে পড়াশোনা করবে না বলে ভর্তি বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তাহলে টিউশন ফি পাঠানোর পর কেন এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে এক ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে অভিযোগ করে বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় এখন টাকা ফেরত পাঠালেও আমার অন্তত ১ হাজার ইউরোর (বাংলাদেশি টাকায় এর পরিমাণ প্রায় ১ লক্ষ টাকা) মতো ক্ষতি হবে। কারণ যখন টাকা পাঠিয়েছি তখন ইউরোর রেট বেশি ছিল এখন কম। এছাড়া এক বছরের মতো সময় অপচয় হয়েছে আমার। এই সময় তো তারা ফেরত দিতে পারবে না।’

ভুক্তভোগী আরেক শিক্ষার্থী বলেন, ‘নেদারল্যান্ডস সরকার থেকে আমাদের ভিসা এপ্রুভাল লেটার দেয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের এমন সিদ্ধান্ত আমাদের হতবাক করেছে। আমরা এরই মধ্যে শপিং এবং বিমানের টিকেটও কেটে ফেলেছি। তারা যদি আমাদের নাই নেবে তাহলে টিউশন ফি নিলো কেন? আমরা এর সুষ্ঠু বিচার চাই। নেদারল্যান্ডসে আইন আছে, তাদের আইনত সহায়তা কামনা করছি আমরা।’

এছাড়া নেদারল্যান্ডসে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের সহযোগিতা কামনার কথাও জানান শিক্ষার্থীরা।

নেদারল্যান্ডসের ফনটিস বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ অবশ্য নতুন না। এর আগেও বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা এই বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করে এমন ভোগান্তিতে পড়েছেন। তবে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা বেশিরভাগ নেদারল্যান্ডসে আসার পর পড়ে না বলে যে যুক্তি দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় তার কিছুটা যৌক্তিকতা অবশ্য রয়েছে। এদেশে আসার পর অনেক বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা পড়াশোনা করেন না বলে নেদারল্যান্ডসে বসবাসরত বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন। কিন্তু এই এক যুক্তি দিয়ে সকল বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের বিবেচনা করারও কোনো যুক্তি নেই।

শিক্ষার্থীদের নানা অভিযোগের বিষয়ে ফনটিস ইউনিভার্সিটি অব এপ্লায়েড সায়েন্সের আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের যোগাযোগ বিভাগ জানায়, ‘আমরা আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের ভর্তির বিষয়ে বিশেষ গুরুত্ব দেই। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সাফল্য এবং প্রতিভার বিকাশ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। একজন শিক্ষার্থী যেন তার অধ্যয়নের সঠিক পছন্দ সে নিজে করতে পারে সেজন্য আগে থেকেই আমরা গাইডেন্স শুরু করি। এই প্রক্রিয়ার অংশ হল ডিপ্লোমা, ন্যূনতম প্রয়োজনীয় জ্ঞান এবং সঠিক অনুপ্রেরণার পুঙ্খানুপুঙ্খ পর্যালোচনা।’

বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের ভর্তি বাতিল প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের এই কর্তৃপক্ষ বলেন, ‘আমরা একজন শিক্ষার্থীর স্টাডি ভিসা পাওয়ার ক্ষেত্রে যোগ্যতা মূল্যায়ন করি। সতর্কতার সাথে মূল্যায়ন করার পরে যদি শিক্ষার্থীর গ্রহণযোগ্যতা সম্পর্কে যুক্তিসঙ্গত সন্দেহ হয় তাহলে ওই শিক্ষার্থীদের আবেদনগুলো আমরা প্রত্যাখ্যান করি। দুর্ভাগ্যবশত এই বিবেচনায় অধিকাংশ বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের আবেদন বাতিল করা হয়েছে।’

তবে এসব বিষয়ে বাংলাদেশে অবস্থানরত নেদারল্যান্ডস দূতাবাসে যোগাযোগ করা হলেও তারা এ প্রসঙ্গে কিছু জানায়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও খবর
© 2018 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের লেখ, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যাবহার বেআইনি
Theme Customized BY LatestNews