1. monir212@gmail.com : admin :
  2. support@wordpress.org : Support :
  3. merajhgazi@gmail.com : News Desk : Meraj Hossen Gazi
  4. desk@probashbarta.com : News Desk : News Desk
শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৩:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

২২ জানুয়ারি থেকে ই-পাসপোর্ট, জেনে নিন খরচ

নিউজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত : রবিবার, ১৯ জানুয়ারী, ২০২০
Print Friendly, PDF & Email

 

স্টাফ রিপোর্টার: দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর ই-পাসপোর্ট পেতে যাচ্ছেন দেশের নাগরিকরা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার (২২ জানুয়ারি) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ই-পাসপোর্ট বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন।

রবিবার (১৯ জানুয়ারি) এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। এসময় তিনি বলেন, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী সর্বপ্রথম ই-পাসপোর্ট পাবেন। এক্ষেত্রে সবাই ই-পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে পারবে। তবে আপাতত শুধু ঢাকার আগারগাঁও, উত্তরা ও যাত্রাবাড়ী পাসপোর্ট কার্যালয় থেকে ই-পাসপোর্ট দেওয়া হবে।

সাংবাদিকের এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ২০২০ সালের মধ্যেই সারাদেশে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম চালুর পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। এছাড়াও বিদেশে অবস্থানরত প্রবাসীরা পর্যায়ক্রমে ই-পাসপোর্ট পাবেন। প্রথমে উত্তরা, আগারগাঁও ও যাত্রাবাড়ী থেকে ই-পাসপোর্ট দেয়া শুরু হলেও পর্যায়ক্রমে সারাদেশে এ কার্যক্রম চালু হবে বলে জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

 

সংবাদ সম্মেলনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরো জানান, নানা জটিলতায় কয়েক দফা পেছাতে হয়েছে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম শুরুর দিন-তারিখ। ২২ জানুয়ারি ই-পাসপোর্ট চালুর মাধ্যমে বাংলাদেশ বিশ্বের ১১৯তম এবং দক্ষিণ এশিয়ায় প্রথম দেশ হবে বলে জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে ই-পাসপোর্টের ফি সম্পর্কে জানানো হয়-

৪৮ পৃষ্ঠার পাঁচ ও দশ বছর মেয়াদি পাসপোর্টের ক্ষেত্রে

পাসপোর্টের ফির ধরণ ৫ বছর মেয়াদী পাসপোর্টের ফি ১০ বছর মেয়াদী পাসপোর্টের ফি
সাধারণ ফি ৩,৫০০ টাকা ৫,০০০ টাকা
জরুরি ফি ৫,৫০০ টাকা ৭,৫০০ টাকা
অতিজরুরি ফি ৭,৫০০ টাকা ১০,৫০০ টাকা

 

৬৪ পৃষ্ঠার পাঁচ ও দশ বছর মেয়াদি পাসপোর্টের ক্ষেত্রে

পাসপোর্টের ফির ধরণ ৫ বছর মেয়াদী পাসপোর্টের ফি ১০ বছর মেয়াদী পাসপোর্টের ফি
সাধারণ ফি ৫,৫০০ টাকা ৭,০০০ টাকা
জরুরি ফি ৭,৫০০ টাকা ৯,০০০ টাকা
অতিজরুরি ফি ১০,৫০০ টাকা ১২,০০০ টাকা

 

বাংলাদেশে হাতে লেখা পাসপোর্ট থেকে যন্ত্রে পাঠযোগ্য পাসপোর্ট বা এমআরপি প্রবর্তনের পর এক দশকও পার হয়নি। কিন্তু এমআরপির ডেটাবেইজে ১০ আঙ্গুলের ছাপ সংরক্ষণের ব্যবস্থা না থাকায় এক ব্যক্তির নামে একাধিক পাসপোর্ট করার ঘটনা দেখা যায়।

এর পরিপ্রেক্ষিতে নাগরিক ভোগান্তি কমাতে এবং একজনের নামে একাধিক পাসপোর্ট করার প্রবণতা বন্ধ করতে ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট (ই-পাসপোর্ট) চালু করতে উদ্যোগী হয় সরকার। ২০১৮ সালের ২১ জুন প্রকল্পটি একনেকের সায় পায়।

প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ওই বছরের জুলাইয়ে জার্মান কোম্পানি ভেরিডোসের সঙ্গে চুক্তি করে পাসপোর্ট ও বহির্গমন অধিদপ্তর। সোয়া তিন হাজার কোটি টাকায় বাংলাদেশকে ই-পাসপোর্ট ও অন্যান্য সরঞ্জাম সরবরাহ করছে তারা।

ই-পাসপোর্ট নামে পরিচিত বায়োমেট্রিক পাসপোর্টে স্মার্ট কার্ড প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়, যাতে মাইক্রোপ্রসেসর চিপ এবং অ্যান্টেনা বসানো থাকে। এ পাসপোর্টের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাসপোর্টের ডেটা পেইজ এবং চিপে সংরক্ষিত থাকে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও খবর
© 2018 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের লেখ, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যাবহার বেআইনি
Theme Customized BY LatestNews