1. monir212@gmail.com : admin :
  2. user@probashbarta.com : helal Khan Probashbarta : Helal Khan
  3. merajhgazi@gmail.com : News Desk : Meraj Hossen Gazi
  4. desk@probashbarta.com : News Desk : News Desk
মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১, ০৩:৫৯ পূর্বাহ্ন

মালয়েশিয়া শ্রমবাজার চলে যাচ্ছে নেপালে !

নিউজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারী, ২০২০
Print Friendly, PDF & Email

 

ওয়ালীউল হাসানাত, প্রবাস বার্তা: প্রায় দেড় বছর বাংলাদেশের জন্য ভিসা বন্ধ থাকায় মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার চলে যাচ্ছে ভিন্ন দেশের হাতে। আর সেই সুযোগটিই কাজে লাগাচ্ছে নেপালের মতো দেশ। এরই মধ্যে প্রায় ১ লাখ নেপালি কর্মী মালয়েশিয়ায় যেতে মেডিকেল সম্পন্ন করেছেন। অন্যদিকে মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা ভিসা বিক্রি করছে নেপালে।

মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারে বাংলাদেশ থেকে কর্মী যাওয়া বন্ধ হয় ২০১৮ সালের ১লা সেপ্টেম্বর থেকে। এরপর প্রায় দেড় বছরে নানা দেনদরবার, বৈঠক, চিঠি চালাচালি চলছে। কিন্তু তারপরও কোন আশার আলো এখন পর্যন্ত দেখা যায়নি। কারণ দু’দেশের মধ্যে কয়েকটি ইসুতে একমত না হওয়ায় আটকে আছে মালয়েশিয়া শ্রমবাজার।

সম্প্রতি মালয়েশিয়া থেকে ব্যাক ফর গুড (বি ফোর জি) পদ্ধতিতে বিভিন্ন দেশের কর্মীরা নিজ দেশে ফিরে যাওয়ায় তৈরি হয়েছে নতুন কর্মীর ব্যপক চাহিদা। আর এই সুযোগটি কাজে লাগাচ্ছে নেপাল।

বাংলাদেশসহ ১৪টি সোর্স কান্ট্রি থেকে বিদেশি কর্মী নেয় মালয়েশিয়া। কিন্ত দীর্ঘদিন বাংলাদেশ থেকে কর্মী যাওয়া বন্ধ থাকায় এখন নেপাল থেকে অধিক সংখ্যক কর্মী নেওয়া শুরু করেছে দেশটি। এমন বাস্তবতায় মালয়েশিয়ায় অবস্থান করা বাংলাদেশি ব্যবসায়িরা নেপালিদের কাছে ভিসা বিক্রি করছে। এ ক্ষেত্রে ভিসা প্রতি ২ থেকে ৩ হাজার রিংগিত নিচ্ছেন তারা। ফলে, নেপাল থেকে শূন্য অভিবাসন ব্যয়ে মালয়েশিয়ায় কর্মী যাওয়ার কথা বলা হলেও বাস্তবতা ভিন্ন। কারণ নেপালীদেরও ভিসা কিনতে হচ্ছে ২ থেকে ৩ হাজার রিংগিতে।

জানাগেছে, মালয়েশিয়া যেতে এরইমধ্যে প্রায় ১ লাখ নেপালী কর্মীর মেডিকেল সম্পন্ন হয়েছে। এই কর্মীরা মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারে প্রবেশ করলে বাংলাদেশী কর্মীদের চাহিদা কমে আসবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। কারণ, বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিতে যেসকল নিয়োগদাতারা অপেক্ষায় ছিলেন, তারাই নেপাল থেকে কর্মী নেয়ার প্রস্তুতি শুরু করেছেন। আবার বাংলাদেশি যারা মালয়েশিয়ায় ভিসা ব্যবসা করেন, তারাও এখন নেপালের মার্কেটিং শুরু করেছেন। ফলে বাংলাদেশ হারাতে পারে মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার।

বাংলাদেশ এসোসিয়েশ অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সিস- বায়রার যুগ্ম-মহাসচিব এডভোকেট সাজ্জাদ হোসেন মনে করেন, “দীর্ঘদিন শ্বামবাজারটি বন্ধ থাকায় বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেয়ার আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন নিয়োগদাতারা। মালয়েশিয়ার নিয়োগদাতারা অনেক দিন অপেক্ষা করেছে বাংলাদেশি কর্মীর জন্য। কিন্তু শ্রমবাজার চালু না হওয়ায় এখন নিয়োগদাতারা অন্য দেশের দিকে যাচ্ছেন। এই সুযোগ নিচ্ছে নেপালসহ কয়েকটি দেশ। শ্রমবাজারটি দ্রুত চালু না হলে অর্থনৈতিকভাবে বাংলাদেশ ক্ষতিগ্রস্ত হবে।”

শ্রম অভিবাসন বিশ্লেষক হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, ” দুবাই শ্রমবাজার বন্ধ, জাপানে প্রত্যাশিত কর্মী পাঠানো সম্ভব হয়নি, ইরাক শ্রমবাজারও বন্ধ বললেই চলে। এমন অবস্থায় মালয়েশিয়া শ্রমবাজার খুলতে না পারলে এই খাত হুমকিতে পড়বে।”

চৌধুরী কিরণ বলেন, “আমরা দেখছি, মন্ত্রী ও সচিব চেষ্টা করছেন মালয়েশিয়া শ্রমবাজার চালু করতে, কিন্তু  কেন খুলছে না বাজারটি, তা খতিয়ে দেখা উচিত। দ্রুত বাজারটি চালু করতে না পারলে মুজিব বর্ষে বিদেশে কর্মসংস্থানের যে টার্গেট, তা পূরণ করা কঠিন হবে। একই সাথে বাজারটি অন্যদেশে চলে যাবে। ”

নেপাল থেকে মালয়েশিয়ার কর্মী চাহিদা পূরণ হলে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেয়ার কোন সুযোগ থাকবে না মনে করছেন এখাতের সংশ্লিষ্টরা। তারা বলেন, কর্মীদের স্বার্থ রক্ষা করে বাজারটি যদি দ্রুত সময়ের মধ্যে চালু করা না হয় তাহলে ক্ষতিগ্রস্থ হবে বাংলাদেশ।

>ভিডিও সৌজন্যে TodayBanglaHD

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও খবর
© 2018 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের লেখ, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যাবহার বেআইনি
Theme Customized BY LatestNews