Print Friendly, PDF & Email

 

আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া: মালয়েশিয়ার সর্বত্রে চলছে অভিবাসন বিভাগের অভিযান। দেশটির সরকারের বেধেঁ দেয়া সাধারণ ক্ষমার মেয়াদ গেল বছরের ৩১ ডিসেম্বর শেষ হওয়ার পরপরই রাজধানী শহর সহ প্রতিটি প্রদেশে অবৈধ অভিবাসীদের আটক করতে শুরু করেছে অভিযান।

চলতি মাসের শুরু থেকে অভিবাসন বিভাগের অভিযানে এ পর্যন্ত প্রায় ৩ শতাধিক অবৈধ বাংলাদেশিকে আটক করা হয়েছে বলে একাধিক সূত্রে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, অবৈধ বিদেশীদের কারণে স্থানীয়দের মধ্যে ব্যাপক উদ্বেগ সৃষ্টি করেছে যা শুধু জাতীয় ও সীমান্ত নিরাপত্তাকেই বিঘ্নিত করে না বরং দেশের রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির উপর ব্যপক প্রভাব ফেলছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী তানশ্রী মহিউদ্দিন ইয়াসিনের ঘোষণা অনুযায়ী আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে অবৈধ শ্রমিক বা অভিবাসীদের বিতাড়নে কাজ করছে সংশ্লিষ্ট বিভাগ।

এ ভঙ্গুর পরিস্থিতিতে বিপাকে পড়েছেন সে দেশে কর্মরত বৈধ-অবৈধ বিদেশী কর্মীরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন বাংলাদেশি কর্মী এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘আমার বৈধ কাগজ পত্র থাকা সত্বেও কাজে যেতে ভয় পাচ্ছি। কারন আমি যে প্রজেক্টে কাজ করি সে প্রজেক্টে গেল শুক্রবার ইমিগ্রেশন পুলিশ অভিযান চালিয়ে বৈধ-অবৈধ প্রায় ৪০ জনকে আটক করেছে। ভাগ্য ভাল সেদিন আমি কাজে যাইনি।’ এমনটিই বলছিলেন বৈধ কাগজ পত্র থাকা একজন বাংলাদেশি শ্রমিক।

এদিকে মালয়েশিয়ায় বর্তমানে ৭ লাখ ৫০ হাজার কর্মসংস্থান খালি রয়েছে। কাজের লোক খোঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা। এমনটিই স্থানীয় সাংবাদিকদের বলছিলেন মানব সম্পদমন্ত্রী এম কুলা সেগারান।

মন্ত্রী বলেন, ২০২০ সালের মধ্যে প্রায় ১০ লাখ কর্মসংস্থান তৈরির লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার। সম্প্রতি মানব সম্পদ মন্ত্রী ইঙ্গতি দিলেন, বাংলাদেশ থেকে বিনা খরচে কর্মী নিয়োগ করবেন। এ খবরে সেদেশে সর্বত্র চলছে আলোচনা সমালোচনা।

মন্ত্রী আরো বলেন, দেশে বিশেষত কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ (টিভিইটি) ক্ষেত্রে চাকরির সম্ভাবনা  বেশি। মানব সম্পদ মন্ত্রনালয় (এমওএইচ) অবিচ্ছিন্নভাবে মালয়েশিয়ানরা শিল্প বিপ্লব ৪.০ (আইআর ৪.০) এর সাথে সামঞ্জস্য রেখে ভবিষ্যতে যে দক্ষতা অর্জন করেছে এবং দক্ষতা অর্জন করতে পারে তা নিশ্চিত করার জন্য ক্রমাগত চিন্তাভাবনা করে কাজ করে চলেছে।

মানব সম্পদমন্ত্রীর উদ্ধৃতি দিয়ে মালয়েশিয়ার হারিয়ান মেট্রোতে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, সে দেশে বর্তমানে ২ লাখ ৫০ হাজার কলেজ ইউনিভার্সিটি পড়ুয়া শিক্ষিত বেকার রয়েছে। তারা মূলত উচ্চমানের চাকরি খোঁজছে। আর কোম্পানি গুলো নিয়োগ দেয়ার ব্যাপারে সতর্ক। কোম্পানি চায় দক্ষতা।

মানব সম্পদমন্ত্রী বলছেন, বর্তমানে মালয়েশিয়ায় ২০ লাখের অধিক বৈধ বিদেশি কর্মী রয়েছেন। সবাই কাজ করছে। কেউ বেকার নেই। তার পরেও ৭লাখ ৫০ হাজার কর্ম খালি রয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি কর্ম খালি রয়েছে কৃষি খাতে। ২য় স্থানে রয়েছে কন্সট্রাকশন। এতে প্রায় দুই লাখের অধিক শ্রমিক সংকট রয়েছে।

এছাড়াও সার্ভিস সেক্টর, ক্লিনার, থ্রিডি এবং ময়লা আবর্জনা যুক্ত যে কাজগুলো রয়েছে একাজ গুলো মূলত বিদেশি কর্মীরা করে থাকেন।  এসকল কাজ মালয়েশিয়ান নাগরিকরা করতে চায়না।

bdnewspaper24