1. monir212@gmail.com : admin :
  2. support@wordpress.org : Support :
  3. merajhgazi@gmail.com : News Desk : Meraj Hossen Gazi
  4. desk@probashbarta.com : News Desk : News Desk
শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৩:০৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

নানা কর্মসূচিতে পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস

নিউজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯
Print Friendly, PDF & Email

 

স্টাফ রিপোর্টার: নানা কর্মসূচিতে পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস ২০১৯। র‍্যালী, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, কর্মসংস্থান মেলা থাকছে আয়োজনের মধ্যে।

এ উপলক্ষ্যে মঙ্গলবার (১৭ ডিসেম্বর) প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সংবাদ সম্মেলন করা হয়। এছাড়াও সমগ্র দেশের বিভিন্ন জেলায় দিবসটির প্রস্তুতি হিসেবে আলোচনা সভা করা হয়েছে।

১৮ ডিসম্বর সকাল ৮টায় জাতীয় সংসদ ভবনের সামনে (মানিক মিয়া এভিনিউ) থেকে একটি র‍্যালী অনুষ্ঠিত হবে। ১৯ ডিসেম্বর সকাল ৯টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস ২০১৯ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শখ হাসিনা।

এদিকে বাংলাদেশে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি বেসরকারি সংস্থা, সংগঠন দিবসটি পালন করছে। দিবসটি উপলক্ষে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি নিরাপদ অভিবাসন নিশ্চিতকরণ শীর্ষক একটি ছায়া সংসদ বিতর্ক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। ১৮ ডিসেম্বর বেলা ১২টায় এফডিসির এটিএন বাংলার স্টুডিওতে এই বিতর্ক অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন পরিকল্পনি মন্ত্রী এম এ মান্নান। অনুষ্ঠানটির পরিচালক হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ।

এছাড়াও প্রবাসীদের জন্য বিশেষায়িত সংবাদ মাধ্যম প্রবাস বার্তা অভিবাসী দিবস উপলক্ষে “স্যালুট প্রবাসী” নামে একটি বিশেষ প্রকাশনা বের করছে। প্রবাসীদের সমস্যা সম্ভাবনার নানা বিষয়ে লেখা, তথ্য ও পরামর্শ থাকছে এই প্রকাশনায়। এছাড়াও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদ এর ১১ মাসের কর্মকাণ্ড ও সফলতা ছবির মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে প্রকাশনায়। থাকছে সচিব মো. সেলিম রেজার সাক্ষাৎকার ভিত্তিক লেখা। জনপ্রিয় সাংবাদিক মোস্তফা ফিরোজ, শ্রম অভিবাসন বিশ্লেষক হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণের লেখাও থাকছে প্রবাস বার্তার বিশেষ প্রকাশনা স্যালুট প্রবাসী-তে।

আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস প্রতি বছর ১৮ই ডিসেম্বর জাতিসংঘের সকল সদস্যভূক্ত দেশে পালিত হয়ে আসছে। ১৮ ডিসেম্বর, ১৯৯০ সালে সাধারণ পরিষদ অভিবাসী শ্রমিকদের স্বার্থ রক্ষায় পর্যাপ্ত নিরাপত্তা এবং তাদের পরিবারের ন্যায্য অধিকার রক্ষায় আন্তর্জাতিক চু্ক্তি ৪৫/১৫৮ প্রস্তাব আকারে গ্রহণ করে। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ ৪ ডিসেম্বর, ২০০০ সালে দিনটি বিশ্বব্যাপী উদযাপনের সিদ্ধান্ত নেয়। মূলত বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা ব্যাপক হারে অভিবাসন ও বিপুলসংখ্যক অভিবাসীদের স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয়াদিকে ঘিরেই এ দিবসের উৎপত্তি।

বিশ্বের বহু দেশ, সরকারের সংগঠন কিংবা মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন বেসরকারী সংস্থা, সংগঠন যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসকে ঘিরে বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান পালন করে। এরমধ্যে আলোচনা সভা, পথসভা, শোভাযাত্রা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, মানববন্ধন উল্লেখযোগ্য। এ সকল বিষয়গুলোর সবটুকুই অভিবাসীদের কেন্দ্র করে অনুষ্ঠিত হয়। অভিবাসীদের মানব অধিকারের বিষয়ে তথ্যের বিস্তৃতি ঘটানো এবং সাম্প্রদায়িক ও রাজনৈতিক সংক্রান্ত দ্বন্দ্ব-সংঘাত থেকে মুক্তি লাভ, অভিজ্ঞতা বিনিময়, অভিবাসীদের রক্ষার লক্ষ্যে নিশ্চয়তা বিধানে রূপরেখা প্রণয়ন ইত্যাদি বিষয়গুলো এতে প্রাধান্য পায়।

১৯৯৭ সাল থেকে ফিলিপিনো এবং অন্যান্য এশীয় অভিবাসী সংগঠনগুলো দিবসটি পালন করতে শুরু করে। শুরুর দিকে তারা ১৮ ডিসেম্বরকে নির্ধারণ করে এবং অভিবাসীদেরকে ঘিরে ‘আন্তর্জাতিক ঐক্য দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করে। ১৯৯০ সালে জাতিসংঘ অভিবাসী শ্রমিক ও দেশে রেখে আসা তাদের পরিবারের নিরাপত্তা রক্ষায় আন্তর্জাতিক সম্মেলন করেছিল।

এর প্রেক্ষাপটে ১৮ ডিসেম্বর দিনটিকে লক্ষ্য করে মাইগ্রেন্ট রাইটস্‌ ইন্টারন্যাশনাল, ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন অন মাইগ্রেন্টস রাইটস্‌-সহ বিশ্বের অনেক সংগঠন অভিবাসীদের স্বার্থ রক্ষার্থে বৈশ্বিকভাবে প্রচারণা চালায়। অবশেষে ১৯৯৯ সালের শেষার্ধে অন লাইনে ব্যাপক প্রচারণার ফলে জাতিসংঘের মুখপাত্র এ দিবসটিকে ‘আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করতে বাধ্য হন।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও খবর
© 2018 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের লেখ, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যাবহার বেআইনি
Theme Customized BY LatestNews