1. monir212@gmail.com : admin :
  2. user@probashbarta.com : helal Khan Probashbarta : Helal Khan
  3. merajhgazi@gmail.com : News Desk : Meraj Hossen Gazi
  4. desk@probashbarta.com : News Desk : News Desk
বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৬:৫৮ অপরাহ্ন

২০২০ সালের মধ্যে বিশ্বমানে রূপ দিতে কাজ করছে মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশন

নিউজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত : সোমবার, ২ ডিসেম্বর, ২০১৯
Print Friendly, PDF & Email

 

আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া: ২০২০ সালের মধ্যে বিশ্বমানে রূপ দিতে মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশন কাজ করছে বলে জানিয়েছেন দেশটির অভিবাসন বিভাগের প্রধান দাতো খায়রুল দাজাইমি দাউদ।

তিনি বলেন ২০২০ সালের মধ্যে মালয়েশিয়ার ইমিগ্রেশন বিভাগকে বিশ্বমানে রূপ দিতে  তিনটি রূপরেখা দিয়েছেন। এ রূপরেখায় রয়েছে, সার্ভিসের মান উন্নত করা, অবৈধ অভিবাসীদের দমনে অভিযান আরও তীব্র করা এবং অভিবাসন তথ্য ব্যবস্থা উন্নীত করার দিকে নজর দেওয়া।

কাউন্টার সার্ভিসের মান উন্নত করার বিষয়ে পরিচালক খায়রুল দাজাইমি বলেন, দেশের প্রতিটি প্রবেশ পথে ডিউটিতে থাকা ইমিগ্রেশন অফিসার এবং সদস্যদের বিদেশি ভাষার দক্ষতা প্রশিক্ষণ নিতে হবে, যা ম্যান্ডারিন ও ইংরাজীতে বলা যেতে পারে।

২ ডিসেম্বর সোমবার ইমিগ্রেশন দিবস উদযাপন উপলক্ষে সরকারি সংবাদ সংস্থা বার্নামায় একটি সাক্ষাত্কারে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, এটি (ইমিগ্রেশন কর্মীরা) বিভিন্ন দেশ থেকে বিদেশী পর্যটকদের পরিচালনায় কার্যনির্বাহের ক্ষেত্রে এটি গুরুত্বপূর্ণ।

বর্তমানে চীনা দূতাবাসের সহযোগিতায় ম্যান্ডারিন ভাষা প্রোগ্রাম পরিচালিত হচ্ছে এবং জাতীয় কর্মসূচির জাতীয় ইনস্টিটিউটে ইংরেজি প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হবে।

তিনি অবৈধ অভিবাসীদের বিষয়ে বলেছেন, বিভাগের মনোযোগ এবং চলমান অভিযান কার্যক্রম আরও তীব্র করা। যা এখন পর্যন্ত দেশে বিদেশিদের অবৈধ প্রবেশ কমাতে কার্যকর হয়েছে।”আমরা অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য নিরলস অভিযান পরিচালনা করব এবং বিশেষত জাতীয় সুরক্ষার জন্য প্রস্তুত থাকব।

পরিচালক বলেন, সাইবারজায়ায় একটি অনলাইন বিনিয়োগ জালিয়াতির সিন্ডিকেটের ৬৮০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই বছর বিভাগের পক্ষে সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি।

ইমিগ্রেশন তথ্য ব্যবস্থা উন্নীত করার বিষয়ে খায়রুল দাজাইমি বলেন, নতুন ইন্টিগ্রেটেড সিস্টেম মালয়েশিয়ার ইমিগ্রেশন সিস্টেম (মাইআইএমএম) প্রতিস্থাপনের জন্য ব্যবহৃত হবে।“যখন নতুন সিস্টেমটি বাস্তবায়িতত হবে, অভিবাসন বিষয়ক পরিচালনাটি আর ম্যানুয়ালি পরিচালিত হবে না এবং দেশে প্রবেশের স্থানে ৬০% এ নামিয়ে আনা হবে। এর অর্থ হলো প্রতিটি বিদেশী দর্শনার্থী স্বয়ংক্রিয় প্রবেশদ্বারে এসে ভ্রমণের জন্য তাদের পাসপোর্টগুলি রেকর্ড করতে স্ক্যান করতে পারে।

এছাড়া সুরক্ষার দিক থেকে বিদেশী দর্শনার্থীকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়, পাসপোর্ট স্ক্যানকরার সময় স্বয়ংক্রিয় গেটটি খোলা হবে না পরিবর্তে তাদের রেফারেন্সের জন্য অভিবাসন অফিসে নেওয়া হবে। এবং এই সিস্টেমটিতে বিদেশী সন্ত্রাসীদের দেশে আসতে বাধা দেওয়ার জন্য একটি ব্যবস্থা থাকবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও খবর
© 2018 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের লেখ, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যাবহার বেআইনি
Theme Customized BY LatestNews