Print Friendly, PDF & Email

 

স্টাফ রিপোর্টার: সৌদি আরব থেকে বাঁচার আকুতি জানিয়ে ভিডিও বার্তা প্রকাশ করা সেই হোসনা আক্তার অবশেষে দেশে ফিরেছেন।

বুধবার (২৭ নভেম্বর) রাত ১১.২০ মিনিটে সৌদি এয়ারলাইন্সের (এসভি ৮০৪) বিমানযোগে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান হোসনা আক্তার।

দেশে এসে পৌঁছানোর পর প্রবাসী কল্যান বোর্ডের মাধ্য‌মে হবিগঞ্জ নিয়ে যাওয়া হয় ক‌ঠোর নিরাপত্তায়। ত‌বে এবার ভিআইপি গেট দিয়ে বের করার সময় সাংবাদিকরা আগে থেকেই বসে ছিলো ভিআইপি গেটে। তারা গা‌ড়ি থা‌মি‌য়ে কথা ব‌লে হোসনা আক্তারের সাথে। এসময় সৌদিতে থাকাকালীন নিজের উপর গৃহকর্তার নির্যাতনের বর্ণনা দেন।

এর আগে সৌদি আরব থেকে বাঁচার আকুতি জানিয়ে ক‌য়েক‌দিন আগে ভিডিও বার্তা দেয় হোসনা। স্ত্রী‌কে নিরাপদে দেশে ফেরত আনতে প‌রে সরকা‌রের কা‌ছে আকুতি জা‌নান তার স্বামী শফিউল্লাহ।

তার পারিবারিক সূত্রে জানানো হয়েছিল, দালাল শাহীন মিয়া ও প্রস্তাবিত রিক্রুটিং এজেন্সি আরব ওয়ার্ল্ড ডিস্ট্রিবিউশন এর প্রলোভনে পড়ে এজেন্সি আল-সারা ওভারসীস (আরএল-৭৫২) সৌদি যাবার সিদ্ধান্ত নেয় হবিগঞ্জের মেয়ে হোসনা। সেখানে তি‌নি শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের শিকার হন।‌ প‌রে হোসনা ভিডিও বার্তায় তার উপর চালানো নির্যাতনের বর্ননা দিয়ে জীবন বাঁচার আকুতি জানান স্বামী শফিউল্লাহর কাছে। কোন উপায়ন্তর না পেয়ে শফিউল্লাহ ছুটে যান দালাল ও আরব ওয়ার্ল্ড ডিস্ট্রিবিউশন অফিসে, তারা হোসনা‌কে কে দেশে আনতে দুই লাখ টাকা দাবী করেন পরিবারের কাছে। কোন উপায় না পেয়ে ২৪ নভেম্বর ব্র্যাকের সহায়তায় চেয়ে আবেদন করেন হোস্নার স্বামী শফিউল্লাহ। এরপর নিরাপদে হোস্নাকে দেশে ফেরত আনতে পরিবারটিকে সার্বিক সহায়তার সিদ্ধান্ত নেয় ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম।

এরপর গেল মঙ্গলবার (২৬ নভেম্বর) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সৌদি আরবের জেদ্দাস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটের উদ্যোগে গৃহকর্মী হোসনা আক্তারকে উদ্ধারের জন্য নাজরান পুলিশকে অবহিত করা হয়। প‌রে সেখান থেকে তা‌কে উদ্ধার করে সেফ হোমে আনা হয়। এরপর তা‌কে দেশে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নেয়া হয়।

bdnewspaper24