ফাইল ছবি
Print Friendly, PDF & Email

 

বিশেষ প্রতিনিধি: মালয়েশিয়া শ্রমবাজার সম্পর্কে সেদেশের দুটি মন্ত্রণালয়কে দেয়া বায়রা মহাসচিব শামীম আহমেদ চৌধুরী নোমানের চিঠির বিষয়ে সতর্ক করে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্হান মন্ত্রণালয় চিঠি দিয়েছে।

শনিরাব ( ২ নভেম্বর ) বিকালে চিঠি ইস্যু করে মন্ত্রণালয়। বায়রা সচিবালয় বরাবর চিঠি পাঠানো হয়।

শ্রমবাজার চালুর বিষয়ে মালয়েশিয়া সরকারের ইচ্ছাকে গুরুত্ব দিয়ে কর্মী ও দেশের স্বার্থ রক্ষা করে কাজ করছে মন্ত্রণালয়। বেশ খানিকটা অগ্রগতিও আছে সেখানে।   বায়রার নামে এমন চিঠি সেই সম্পর্কে নেতিবাচক প্রভাবের আশঙ্কা করেছিলেন সংশ্লিষ্টরা । তবে মন্ত্রণালয় থেকে ব্যাখ্যা চেয়ে চিঠি দেয়ায় মালয়েশিয়ার কাছে ভালো বার্তা দেবে বলে মনে করছেন তারা।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্হান মন্ত্রী ইমরান আহমদ বলেন, “বায়রা রিক্রুটিং এজেন্টদের সংগঠন। আমার রিক্রুটিং এজেন্টদের সাথে কাজ করছি। এ কারণে বায়রার সাথে বন্ধুত্ব রেখে চলতে চাই। কিন্তু  আমাদের দায়দায়িত্ব তো দিয়ে দিতে পারি না।”

ইমরান আহমদ বলেন, “শ্রমবাজার ইস্যুতে মালয়েশিয়া সরকারকে পরামর্শ দিয়ে চিঠি দেয়ার এখতিয়ার নেই বায়রার। শ্রমবাজার নিয়ে কথা হচ্ছে দু-দেশের সরকারের মধ্যে। বায়রা তো সরকার না।”

মন্ত্রী মনে করেন, “এই চিঠিকে গুরুত্ব দেবে না মালয়েশিয়া। কারণ বায়রা সরকার না। তবে কেউ ভিন্ন উদ্দেশ্য নিয়ে কোন কিছু করলে, দেশের ক্ষতি হতে পারে।”

গত ২৭ অক্টোবর মালয়েশিয়া সরকারের দুই মন্ত্রী চিঠি দেন বায়রার মহাসচিব শামীম আহমেদ চৌধুরী নোমান। চিঠিতে, মালয়েশিয়া  শ্রমবাজার  বিষয়ে বেশ কিছু বিষয় তুলে ধরেন। কর্মী নিতে মালয়েশিয়া সরকার যেই পদ্ধতি ব্যবহার করছে তা গ্রহণযোগ্য নয় বলে মতামত দেন। একই সাথে অন্য প্রতিষ্ঠানকে এই দায়িত্ব দেয়ার পরামর্শ দেন। চিঠিটি বায়রার সাধারণ সদস্যদের পক্ষে থেকে দেয়ার কথা বলা হলেও, এ বিষয়ে বায়রায় কোন আলোচনাই হয়নি বলে জানান নির্বাহী কমিটির একাধিক সদস্য।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার ( ৩১ অক্টোবর)  বায়রা মহাসচিবকে মন্ত্রণালয়ে ডেকে ক্ষোভ জানিয়েছেন মন্ত্রী। চিঠির বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলেন তাকে।

bdnewspaper24