Print Friendly, PDF & Email
আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া: মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিকদের নতুন নিয়োগের শর্তসমূহ নিয়ে মালয়েশিয়া ও বাংলাদেশের মধ্যে চলমান আলোচনা আগামী ৬ নভেম্বর  থেকে আবার শুরু হবে বলে সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে ।
সূত্রে জানা যায়, ঢাকায়  গত ২৪ সেপ্টেম্বর দুই দেশের যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের (জেডাব্লিউজি) সভা স্থগিত করার পরে এই নতুন তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছিল।
স্থগিতাদেশের কারণ এখনও পর্যন্ত স্পষ্ট না করা হলেও মালায়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রনালয়ের একজন কর্মকর্তার সঙ্গে এ বিষয়ে  যোগাযোগ করা হলে তিনি এ ইঙ্গিত করেন যে, চলমান আলোচনা নতুন তারিখে (৬ নভেম্বর) এগিয়ে যাবে।
এ দিকে  মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার চালুর বিষয়ে চুড়ান্ত বৈঠকের জন্য প্রস্তুত প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়। এ লক্ষে মালয়েশিয়া যেতে মন্ত্রী ইমরান আহমদ এর নেতৃত্বে ৫ সদস্যের প্রতিনিধিদলের জিও (সরকারি আদেশ) অনুমোদন করে রাখা হয়েছে। গত ২৩ সেপ্টেম্বর এটি অনুমোদন করা হয়।
মন্ত্রণালয় এবং হাইকমিশন সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ  থেকে কর্মী নিতে বেশ আন্তরিক মালয়েশিয়া। এ লক্ষে সব ঠিকঠাক করেছে দেশটির মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়। কোন পদ্ধতিতে কর্মী নেবে তারা, অভিবাসন ব্যয় কত হবে, কতোগুলো রিক্রুটিং এজেন্সি কাজ করতে পারবে, নিয়োগদাতাদের জবাবদিহিতা ইত্যাদি বিষয় চুড়ান্ত করেতে মালয়েশিয়া সরকার প্রস্তুত বলে জানা গেছে। এখন দু-দেশের বৈঠক হলেই শ্রমবাজার উন্মুক্ত হবে বলে আশা করা হচ্ছে।
মালয়েশিয়া যেতে সরকারের একটি টিম ( প্রতিনিধিদল) প্রস্তুত রয়েছে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অনুমোদনও সম্পন্ন হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক  কর্মসংস্থান  মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা। ঐ কর্মকর্তা জানান, মন্ত্রণালয় সব কাজ সম্পন্ন করে রেখেছে।
প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, ”কর্মী যাবে ওখানে (মালয়েশিয়া)। কর্মী নেবে মালয়েশিয়া। তাদের কিছু প্রস্তাবনা বা চাহিদা থাকতে পারে। তারা কি চায়, সেটাই গুরুত্ব দেয়া হবে। একইসাথে দেশের স্বার্থ এবং কর্মীদের সুবিধা অগ্রাধিকার পাবে।”
উল্লেখ্য, গেলো বছরের ১ সেপ্টেম্বর বন্ধ হয়ে যায় মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানোর অনলাইন পদ্ধতি এসপিপিএ। এরপর সে সময়ের মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বি.এসসি ২৫ সেপ্টেম্বর মালয়েশিয়া গিয়ে বৈঠক করেও, শ্রমবাজারটি চালু করতে পারেননি। এরপর ৩১ অক্টোবর ঢাকায় দু,দেশের যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেই বৈঠকে নতুন করে কর্মী নেয়ার কিছু পদ্ধতি ঠিক হয়।
চলতি বছরের ১৪ মে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী (তখন প্রতিমন্ত্রী) ইমরান আহমদ মালয়েশিয়া সফরে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তানশ্রি মুহিউদ্দিন ইয়াসিন ও মানবসম্পদ মন্ত্রী এম কুলাসেগারানের সাথে বৈঠক করেন। সেই বৈঠকের অগ্রগতি হিসেবে ২৯ ও ৩০ মে মালয়েশিয়ায় দুদেশের যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের আরেকটি বৈঠক হয়। কিন্তু সেখান থেকেও শ্রমবাজার চালুর বিষয়ে কোন রুপরেখা পাওয়া যায়নি।
গত ৭ জুলাই মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রী সাইফুউদ্দিন বিন আব্দুল্লাহর বাংলাদেশ সফরের বৈঠক শেষে পরারাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছিলেন, আগষ্টেই খুলছে মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার ।
তবে আগামী ৬ নভেম্বর দুই দেশের আলোচনার মধ্য দিয়ে শ্রমবাজার চালুর বিষয়ে আশাবাদী প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ ।

bdnewspaper24