Print Friendly, PDF & Email

 

স্টাফ রিপোর্টার : ব্রুনাই দূতাবাসে এক বাংলাদেশিকে পেটানোর সেই আলোচিত ঘটনায় ব্যবস্থা নিচ্ছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্হান মন্ত্রণালয়।

বুধবার ( ২৮ আগস্ট ) গণমাধমে পাঠানো এক বার্তায় মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়, “ব্রুনাইয়ে অবস্থিত বাংলাদেশ হাইকমিশনে ঘটে যাওয়া অনাকাঙ্খিত ঘটনার বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহন করছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্হান মন্ত্রণালয়। দায়িত্বশীল ও মর্যাদাপূর্ণ শ্রম অভিবাসন নিশ্চিত করতে মন্ত্রণালয় উক্ত অনাকাঙ্খিত ঘটনাটির বিষয়ে সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।”

গেলো ২২ আগস্ট প্রবাস বার্তায় এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। সে সময়েই মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টিতে আনা হয় ঘটনাটি ।

আলোচিত সেই ভিডিওতে দেখা যায়, একটি কক্ষে চেয়ারে বসে আছেন কর্মকর্তা। পাশে সোফায় অন্য এক অথবা দুজন। দাঁড়িয়ে আছেন আরো কয়েকজন। এমন অবস্থায় এক যুবককে পালাক্রমে বেদম পেটাচ্ছেন কয়েকজন। এই ভিডিওটি কয়েকদিন ধরে সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল।

ভিডিওটি ব্রুনাই দূতাবাসের। দূতাবাসের প্রশাসনিক কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল রশিদের কক্ষের ঘটনা। ভিডিওতে চেয়ারে বসা কর্মকর্তা তিনিই। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্হান মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা প্রবাস বার্তাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আগেই।

গত বৃহস্পতিবার ( ২২ আগস্ট) দুপুর ১ টার দিকে ঐ কর্মকর্তা জানান, “ দূতাবাসের শ্রম কাউন্সেলর মাইনুল হাসান এখন ঢাকায় অবস্থান করছেন। তিন দিনের শ্রম কল্যাণ সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন তিনি। দুপুরে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে ছিলেন মাইনুল হাসান।”

সেদিনই প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্হান মন্ত্রী ইমরান আহমদ ভিডিওটি দেখেছেন। বিষয়টি নিয়ে তিনি খোঁজ খবর নিচ্ছেন। ঐ কর্মকর্তা ( মইনুল হাসান) জানিয়েছেন, ‘ভিডিওতে যাকে পেটানো হচ্ছে তিনি একজন দালাল।’ কর্মীদের ভুয়া ভিসায় ব্রুনাই নিয়ে আর কোন খোঁজ নেয়নি। হঠাৎ প্রতারিত কর্মীরা তাকে পাওয়া দূতাবাসে এনে ক্ষুব্ধ হয়ে মারপিট করেছে।

তবে প্রতারণার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন হামলার শিকার কামরুল হাসান । তিনি বলেন দূতাবাস কোন যাচাই না করেই হামলায় সহায়তা করেছে।

 

bdnewspaper24